বিশ্ব নবীর ক্ষমার দৃষ্টান্ত

muhammad

বনু হানিফা গোত্র। দুর্ধর্ষ এক কুচক্রী গোত্র এটি। বহু অপরাধের ধারক-বাহক এই গোত্রের লোকেরা। মুসাইলামার মতো মিথ্যুক নবীর জন্ম এই গোত্রে। এই গোত্রেরই প্রচণ্ড বিদ্বেষী ও খুনি সরদার সুমামা ইবনুল আদাল।

বহু খুনে তার হাত রঞ্জিত হয়েছে। অসংখ্য মুসলমানের সর্বনাশ হয়েছে তার হাতে। এবার সে বন্দী। সবাই তার কতলের জন্য দাবি তুলল। ইসলামের এই বড় দুশমনের একমাত্র শাস্তি হলো কতল।

বন্দীকে হাজির করা হলো নবীজীর কাছে। তিনি বন্দীর দিকে তাকালেন এবং জিজ্ঞেস করলেন, “তোমার কি কিছু হয়েছে” বন্দী বলল, হে মুহাম্মদ! আপনি যদি আমাকে হত্যা করেন তাহলে একজন বড় দুশমন, অপরাধী ও হত্যাকারীকেই হত্যা করবেন।

আর যদি দয়া করেন তাহলে একজন সত্যিকার অকৃতজ্ঞ ব্যক্তির প্রতি অনুগ্রহ করবেন। আর তা না করে মুক্তিপণ নিয়ে ছেড়ে দিলে বলুন তাহলে কত মুক্তিপণ দিতে হবে? সুমামার কথা শুনে রাসূল (সা) চুপ থাকলেন এবং কিছু না বলে উঠে চলে গেলেন।

দ্বিতীয় ও তৃতীয় দিনও একই প্রশ্ন করল সুমামা, এ দিনেও নবীজী আর কোনো কথাই বললেন না। সুমামা জানত মৃত্যুই তার শাস্তি। এ জন্য সে প্রস্তুতও ছিল।

একদিন অকস্মাৎ নবী (সা) সুমামাকে… মুক্ত করে দিতে এক সাহাবিকে নির্দেশ দিলেন। সাহাবি তাই করল। নবীজীর কাণ্ড দেখে বিস্মিত হলো সুমামা। এটা যে কল্পনাও করা যায় না। মুক্ত হয়ে সে চলে গেল নীরবে।

সাহাবিরা ভাবলেন সুমামা আবার গোত্রের লোকদের নিয়ে আক্রমণের প্রস্তুতি নেবে। কিন্তু না, একটু পরেই সে ফিরে এলো নবীজীর নিকট। মদীনার উপকণ্ঠে একটা কূপ থেকে গোসল সেরে এসেছে সুমামা।

এসেই নবীজীকে মিনতির সুরে বলল, আমাকে সত্য ধর্মের দীক্ষা দিন। নবীজী তাকে ভাবতে বললেন। সুমামা বলল না, এখনই আমি সত্য ধর্মে ফিরে আসতে চাই। সে আবেগভরা কণ্ঠে জানাল,

এই শহর ছিল আমার কাছে সবচেয়ে ঘৃণ্য আর আজ তা হলো সবচেয়ে প্রিয়। একটু আগেও এই ধর্ম ছিল আমার কাছে সবচেয়ে জঘন্য, আর এখন সবচেয়ে উত্তম। আর আপনার চেয়ে অধিক প্রিয় মানুষ আমার আর কেউ নেই।

আল্লাহু আকবার

এ কথা বলেই সুমামা ইবনুল আদাল নবী (সা)-এর পা জড়িয়ে ধরে কাঁদতে লাগল। ক্ষমার মহিমায় রাসূলুল্লাহ (সা) মানুষকে এভাবেই আপন করে নিলেন, দীক্ষিত করলেন আল্লাহর দ্বীন ইসলামে।

মহানবী( সা)-এর জীবনের প্রতিটি ঘটনায় তিনি যে উত্তম আচরণ, আদর্শ পেশ করেছেন তারই কারণে ইসলাম হয়েছিল বিজয়ী। দুনিয়াজুড়ে ইসলাম মানুষের মুক্তির দিশা হিসেবে ছড়িয়ে পড়েছিল।

আজো এই মহান আদর্শ ফুরিয়ে যায়নি। আমরা মুসলমানেরা সেই উত্তম আদর্শ থেকে বিচ্যুত বলেই আমাদের আজকের এই দুর্দশা। আমরা যেন মহানবী (সা)-এর আদর্শে উদ্ভাসিত হতে পারি, আল্লাহ আমাদের সেই তাওফিক দান করুন।আমিন

মৃত্যুর প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে কি….?

 মৃত্যু একটি বাস্তব সত্য যা প্রতিটি প্রাণীকেই বরণ করতে হবে। অথচ এর জন্য আমরা কেউ প্রস্তুত নই।এ ব্যপারে আমরা সকলেই অবগত আছি যে মৃত্যু অবদারীত সত্য। মৃত্যুর পর আমাদেরকে কোথায় যেতে হবে কোথায় থাকতে হবে আমরা সবাই জানি।

আমাদেরকে কেমন ঘরে থাকতে হবে? যেখানে ‘ঘর আছে দরজা নেই, মানুষ আছে শব্দ নেই।’ এর জন্য আমাদের কেমন প্রস্তুতি নেওয়া উচিৎ! আমরাকি এর জন্য প্রস্তুতি নিয়েছি? আমরা কি এর অধিবাসী নই?

আসুন, এ বাস্তব সত্য কবরের পূর্বের অবস্থাটা একটু বিবেচনা পর্যালোচনা করে দেখি। কবরের পূর্বের অবস্থাকে আমরা দুনিয়ার বাসর ঘরের সাথে তুলনা করে দেকি!

বিয়ের আগে বর খুব সুন্দর করে ভাল সাবান মেখে গোসল করে। তারপর দামী সুন্দর পোশাকে সাজে এবং ভাল সুগন্ধি শরীরে মাখে। তারপর বাসর ঘরে প্রবেশ করে।

কি সুন্দর বিছানা,অনেক দামি খাট পালং এবং অত্যাধূনিক সাজ সজ্জা ও নানা রকম ডেকোরেশন ফূল সজ্জা। এ রাতের অনুভূতি কেমন হয়? হে রাত দীর্ঘ হও, হে নিদ্রা দূর হও বহু দূর, হে ভোরের সকাল উদয় হয়ো না!

পক্ষান্তরে চিরবিদায়ের সময় চিরনিদ্রার ঘর কবরে যাওয়ার আগেও পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার জন্য আমাদের গোসল প্রয়োজন। কিন্তু সে গোসল নিজের ইচ্ছায় নয় অন্যকে তা দিতে হচ্ছে। এ সময় উলঙ্গ করা হচ্ছে।

কিন্তু বাধা দেওয়ার শক্তি নেই। জীবিত অবস্থায় এমন কেউ করতে পারতো না। হায়! কত অসহায়! গোসলের পর সুন্দর দামী পোসাকের বাহাদুরীও নেই। সাদা অল্প দামের কাফনের কাপড় পরতে হচ্ছে।

সুগন্ধি মাখা হচ্ছে, কিন্তু ঘ্রাণ নেওয়ার অনুভূতি নেই এবং অন্যরা তা উপভোগ করছে। মূল্যবান খাট পালং নেই, বরং সাদামাটা কাঠের খাটিয়ায় শুতে হচ্ছে, প্রিয়তমার কাছে ইচ্ছাকৃত যাওয়ার সুযোগ বা উল্লাস নেই।

অন্যরা কাঁধে বহন করে নিয়ে যাচ্ছে। কোথায় বালিশ, লেপ-তোষক, বিছানা-চাদরের বাহাদুরী? কাদা মাটির বিছানায় শুইয়ে

দেয়া হচ্ছে। রং বেরং সাজ সজ্জা ও আলো তো দুরের কথা, বরং মাটি দিয়ে সেই আলো চিরতরে বন্ধ করে অন্ধকারের পর্দা টেনে দেয়া হয়।

বের হওয়ার কোন দরজা নেই, চিরদিনের জন্য সেই দরজা বন্ধ করে দেয়া হয়। হায়! ‘ঘর তো আছে সত্য, কিন্তু দরজা তো নেই; মানুষ তো আছে সত্য, কিন্তু কোন শব্দ তো নেই।’ হে মানব চিন্তা করেছেন কি?