নবীজীর গোলাম যায়েদের গল্প

নাবি ( সাঃ ) এর একজন গোলাম ছিল , নাম যায়েদ ইবনে হারেসাহ ।

যায়েদের ফ্যামিলি ধনি ছিল , চোরেরা চুরি করে যায়েদকে বাজারে বিক্রি করে দিলো । ( ঐ সময় গোলামের প্রথা ছিলো )

নাবি (সাঃ) এর প্রিয় সহ ধর্মিনী খোদেজা ( রা ) যায়েদকে কিনে নিলেন । এরপর রাসূলের খেদমতে দিয়ে দিলেন । ঐ গোলাম রাসূলের খেদমত করতেন ।
কিছু দিন পর যায়েদের ফ্যামিলি খবর পেলেন তার ছেলে মুহাম্মদ (সাঃ) এর কাছে আছে ।
যায়েদের বাপ-চাচা আসলেন রাসূলের কাছে নিজের ছেলেকে নিয়ে যেতে ।
যায়েদের বাপ -চাচা রাসুলের কাছে প্রস্তাব করলেন , ছেলেটি আমার হারিয়ে গেছে , আপনি যা চান তার বিনিময়ে আমরা আমাদের ছেলেটিকে নিয়ে যেতে চাই । যদি চান তার ওজন পরিমান স্বর্ণ দিয়ে ও আমরা তাকে নিয়ে যেতে রাজি আছি ।

রাসূল( সঃ) উত্তর দিলেন আপনার ছেলে যদি যেতে চায় , তবে আমার কোন আপত্তি নেই টাকা -পয়সা কিছুই লাগবে ।

এরপর রাসূল (সা) যায়েদকে জিগ্গেস করলেন এদেরকে তুমি চিনো ?

যায়েদ উত্তর দিলো একজন আমার পিতা অন্যজন আমার চাচা ।
রাসূল (সাঃ) যায়েদকে বললেন তারা তোমাকে নিতে এসেছে ।

যায়েদ উত্তর দিলো আমি যাবো না ।

নাবি ( সাঃ ) যায়েদের বাপ -চাচা কে বললেন আপনারা বুঝাইয়া দেখেন যদি রাজি হয় আপনাদের ছেলে আপনারা নিয়ে যাবেন , তবে আমি জোর জবর দস্তি করে নিয়ে যেতে দিবোনা ।

যায়েদের বাপ-চাচা বাচ্চাকে (যায়েদ) কতো ভাবে বুঝিয়েছে । “তুমি এখানে থাকলে গোলাম হিসেবে থাকবে আর আমাদের কাছে থাকলে স্বাধীন হিসেবে থাকবে । আমাদের কতো টাকা -পয়সা বসে বসে খেতে পারবে কোন কাম -কাজ করার দরকার হবেনা ।”

যায়েদ উত্তর দিলোঃ-
আমি এই ব্যক্তির কাছে (নাবি সঃ) গোলাম হিসেবে থাকা বেশি পছন্দ করি , নিজের মা-বাবার কাছে স্বাধীন হিসেবে থাকার চাইতে ।

অবশেষে যায়েদের বাপ-চাচা নিজের ছেলেকে ফ্রিতে নিতে ব্যর্থ হল ।

পাঠক আপনারাই বলুন কেমন ভালোবাসা দিলে একজন গোলাম এমন কথা বলতে পারে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *